শিরোনাম:
●   উদ্ভাস-উন্মেষ-উত্তরণ এখন দ্বীপ জেলা ভোলায় ●   ভোলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে আ’লীগের সমর্থিত প্রার্থী বশীর উল্লাহ সভাপতি, সম্পাদক মাহাবুবুল হক লিটু নির্বাচিত ●   ভোলা জেলা প্রশাসকের সাথে আইনজীবী সমিতির মতবিনিময় ●   চরফ্যাশনে দুর্বৃত্তদের আগুনে পুড়লো চট্টগ্রামগামী বাস ●   ডয়েসে ভ্যালী ও জাতীয় গণমাধ্যম ইনিস্টিটিউটের যৌথ আয়োজনে প্রিন্ট পত্রিকার সম্পাদকদের কর্মশালা সম্পন্ন ●   ভোলায় চারটি সহ সারাদেশে ১৫০ সেতু উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী ●   ভোলায় ৩৩৫ কোটি টাকার শহর রক্ষা বাঁধ এখন মরণ ফাঁদ! ●   ভোলায় জমি দখলের খবর পেয়ে স্ট্রোক করে মারা গেলেন প্রবাসী ●   ভোলার নবাগত জেলা প্রশাসকের সাথে আইনজীবী সমিতির মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ●   আজ ইসলামী চিন্তাবিদ মাওলানা মোঃ হাবিবউল্লাহ’র ৩য় মৃত্যুবার্ষিকী
ভোলা, বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১

ভোলার সংবাদ
শুক্রবার ● ১১ মার্চ ২০১৬
প্রথম পাতা » জানা অজানা » সোয়া কোটি টাকা ব্যাংকে জমিয়ে বিরল দৃষ্টান্ত নীলফামারীর ভিক্ষুকদের
প্রথম পাতা » জানা অজানা » সোয়া কোটি টাকা ব্যাংকে জমিয়ে বিরল দৃষ্টান্ত নীলফামারীর ভিক্ষুকদের
৫৫১ বার পঠিত
শুক্রবার ● ১১ মার্চ ২০১৬
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

সোয়া কোটি টাকা ব্যাংকে জমিয়ে বিরল দৃষ্টান্ত নীলফামারীর ভিক্ষুকদের

 ---

নীলফামারী: ভিক্ষুকরা যে সঞ্চয় করতে পারে তার অনুপম দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ জেলার ভিক্ষুকরা। ‘আজকের সঞ্চয় আগামী দিনের সম্পদ’-এ মূলমন্ত্রে উজ্জীবিত হয়ে তারা ব্যাংকে জমিয়েছেন প্রায় সোয়া কোটি টাকা।

এই উপজেলার ৯৫১ জন ভিক্ষুকের মাসিক সঞ্চয় ও প্রাপ্ত অনুদান মিলিয়ে তফসিলী একটি ব্যাংকে ১২টি পৃথক হিসাবের (একাউন্টের) বিপরীতে ওই পরিমাণ টাকা জমা হয়েছে।

প্রায় দুই বৎসর আগে কিশোরগঞ্জ উপজেলাকে ভিক্ষুকমুক্ত ঘোষণার পাশাপাশি ভিক্ষুকদের পুনর্বাসিত করে স্বাবলম্বী করতে ব্যাপক কর্ম তৎপরতা হাতে নেন তৎকালীন নির্বাহী অফিসারসহ ভিক্ষুকমুক্ত কর্মসূচির সংশ্লিষ্টরা।

 

পুনর্বাসিত ভিক্ষুকদের নেয়া হয় উপজেলার একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পে। ওই প্রকল্পের আওতায় তারা নিজ নিজ গ্রামে গঠন করেন সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতি।

উপজেলার ৯৫১ জন ভিক্ষুকের নামে স্থানীয় সোনালী ব্যাংক লিমিটেডে সমিতির নামে পৃথক ১২টি যৌথ পরিচালনার সঞ্চয়ী হিসাব খোলা হয়। প্রতি মাসে প্রত্যকে দুইশ টাকা করে সঞ্চয় করেন। গত দুই বছরে ওইসব হিসেবে (একাউন্টে) জমা হয়েছে ৪৬ লাখ ৪৪ হাজার টাকা। এর পাশাপাশি ওইসব হিসাবে জমা পড়েছে অনুদান ও কল্যাণের ৪১ লাখ ৫৬ হাজার ১৩৩ টাকা এবং ঋণ তহবিল থেকে ৩২ লাখ ৬৫ হাজার ১০৩ টাকা। সব মিলিয়ে অ্যাকাউন্টে মোট সঞ্চয়ের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ৯ লাখ ৬৫ হাজার ২৩৬ টাকা।

‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্পের উপজেলা সমন্বয়কারী মো. মিজানুর রহমান হিসাবগুলো দেখভাল করেন। মো. মিজানুর রহমান বলেন, সোনালী ব্যাংক লিমিটেডের স্থানীয় শাখায় যৌথ পরিচালনার ১২টি পৃথক সঞ্চয় হিসাব খোলা হয়েছে। গত দুই বছরে মোট সঞ্চয় দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ১৯ লাখ ৮৬ হাজার ২৩৬ টাকা।

কেসবা গ্রামের পূর্নবাসিত ভিক্ষুক জাম্মাত হোসেন (৫৭) বলেন, ‘হামরা আগত ভিক্ষা করি জীবন চালাইছিনো, সিদ্দিক ছার আসিয়া হামাক বাঁচার নতুন রাস্তা দেখাইছে, আল্লাহ তার ভাল করুক।’

এ বিষয়ে কথা বললে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস.এম. মেহেদী হাসান বলেন, ‘কিশোরগঞ্জ উপজেলাকে শতভাগ ভিক্ষুকমুক্ত করার কৃতিত্ব আগের ইউএনও সিদ্দিকুর রহমানের। সব মহলের সার্বিক সহযোগিতা নিয়ে তিনি তা সম্ভব করেছেন। পুনর্বাসিত ভিক্ষুকরা ব্যাংকের মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ অর্থ সঞ্চয় করেছেন। যা অন্যান্যদের অনুপ্রেরণা যোগাবে।’





আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

© 2024 দ্বীপের সাথে ২৪ ঘণ্টা Bholar Sangbad, সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।