শিরোনাম:
●   লালমোহনে উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থীকে চড় মারলেন আ’লীগের সম্পাদক ●   ভোলায় রিমালের আঘাতে ঘরচাপায় নিহত ৩, আহত ১০, ঘর বাড়ি বিধ্বস্ত, বেড়িবাঁধ ধ্বস প্লাবিত, অন্ধকারে জেলাবাসী ●   লালমোহনের ধলীগৌরনগর ইউপিতে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন মাকসুদুর রহমান ●   লালমোহনে ডিএসবির এসআইকে পেটালেন শালিক প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকরা ●   ভোলায় তিন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ইউনুছ, মনজুর আলম, জাফর উল্যাহ নির্বাচীত চেয়ারম্যান ●   ভোলার কর্ণফুলী-৩ লঞ্চে চাঁদপুরের মোহনায় অগ্নিকাণ্ড ●   উদ্ভাস-উন্মেষ-উত্তরণ এখন দ্বীপ জেলা ভোলায় ●   ভোলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে আ’লীগের সমর্থিত প্রার্থী বশীর উল্লাহ সভাপতি, সম্পাদক মাহাবুবুল হক লিটু নির্বাচিত ●   ভোলা জেলা প্রশাসকের সাথে আইনজীবী সমিতির মতবিনিময় ●   চরফ্যাশনে দুর্বৃত্তদের আগুনে পুড়লো চট্টগ্রামগামী বাস
ভোলা, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১

ভোলার সংবাদ
সোমবার ● ৩১ জুলাই ২০১৭
প্রথম পাতা » ধর্ম » ১৮ হাজার বাংলাদেশির হজের অনিশ্চয়তা কেটেছে
প্রথম পাতা » ধর্ম » ১৮ হাজার বাংলাদেশির হজের অনিশ্চয়তা কেটেছে
৬৮৯ বার পঠিত
সোমবার ● ৩১ জুলাই ২০১৭
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

১৮ হাজার বাংলাদেশির হজের অনিশ্চয়তা কেটেছে

 ---

ডেস্ক: সৌদি আরবের মোয়াল্লেম ফি নিয়ে হজ এজেন্সিগুলোর সঙ্গে দরকষাকষি শেষে দুই কিস্তিতে ফি পরিশোধের সুবিধা দেয়ায় ১৮ হাজার বাংলাদেশির হজ করা নিয়ে অনিশ্চয়তা কেটেছে। হজ এজেন্সিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (হাব) মহাসচিব এম শাহাদাত হুসাইন তাসলিম পরিবর্তন ডটকম-কে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
তিনি বলেছেন, ‘সৌদি আরবের মোয়াল্লেম ফি নিয়ে যে সমস্যা সৃষ্টি হয়েছিল তা সমাধান হয়ে গেছে। এজেন্সির মালিকরাই ক্ষতিপূরণ দিয়ে এই সমস্যার সমাধান করেছে।’

হাব মহাসচিব বলেন, ‘মক্কায় হাজি সেবা সংস্থার কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক শেষে এই সিদ্ধান্তের কথা জানান সৌদি আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল এএফএম বোরহানুদ্দিন।’

তিনি বলেন, ‘এই বৈঠকে পর রোববার থেকে সংশ্লিষ্ট ৯১টি এজেন্সিকে মোয়াল্লেম নির্ধারণের আহ্বান জানানো হয়েছে। বাংলাদেশের এজেন্সিগুলোকে দুই কিস্তিতে এই ফি পরিশোধের সুযোগ দেয়া হয়েছে।’

শাহাদাত তাসলিম বলেন, যে ১৮ হাজার হাজির মোয়াল্লেম ফি নিয়ে সংকট তৈরি হয়েছিল, তারা ‘সি’ ক্যাটাগরির মোয়াল্লেম সার্ভিস পাচ্ছে।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশি হাজিদের জন্য নির্ধারিত ‘ডি’ ক্যাটাগরির মোয়াল্লেম সার্ভিসের কোটা ফুরিয়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়ে এজেন্সিগুলো। প্রায় ১৮ হাজার হজযাত্রীর মোয়াল্লেম সার্ভিসের জন্য চুক্তি করতে গিয়ে এমন বিপাকে পড়ে ৯১টি হজ এজেন্সি।

এই ৯১টি হজ এজেন্সির মালিক ও প্রতিনিধিরা গত বুধবার রাতে মক্কায় বাংলাদেশ হজ মিশনে সংবাদ সম্মেলন করে এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে হজ এজেন্সির মালিকরা বলেন, বাংলাদেশ সরকার ঘোষিত হজ প্যাকেজের আওতায় গত বছর ‘ডি’ গ্রেডের মোয়াল্লেম ফি ৫২০ রিয়াল করে ধার্য ছিল। যার ফলে ওই নির্ধারিত ফি-তে হাজিদের সেবা দিতে প্রস্তুতি নিয়ে গ্রামের মানুষদের কাছ থেকে কম টাকা নেন হজ এজেন্সির মালিকরা।

কিন্তু সৌদি সরকার দুই মাস আগে বিভিন্ন গ্রেডের মোয়াল্লেমদের ফি বৃদ্ধি করে। ‘এ’ গ্রেডে ৩৯৫০ রিয়াল, ‘বি’ গ্রেডে ১৯০০ রিয়াল, ‘সি’ গ্রেডে ১৫০০ রিয়াল ও ‘ডি’ গ্রেডে ৭২০ রিয়াল নির্ধারণ করে। সৌদি আরবের হজ মন্ত্রণালয় ও হজ কাউন্সিল এই ব্যাপারে আগে কোনো তথ্য দেয়নি বলে সংবাদ সম্মেলনে দাবি করা হয়।

মালিকরা আরো বলেছিলেন, বাংলাদেশি হজ এজেন্সিগুলো সচরাচর ‘ডি’ গ্রেডের মোয়াল্লেমদের মাধ্যমে হাজি নিয়ে আসে। ওই গ্রেডের মোয়াল্লেম ফি বাড়ানো হয়েছে। এ ছাড়া এখন ওই গ্রেডের মোয়াল্লেমও নেই। ‘সি’ গ্রেডে ১৫০০ রিয়ালের মাধ্যমে মোয়াল্লেম ফি দিয়ে হাজি নিয়ে আসা সম্ভব নয়।





আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

© 2024 দ্বীপের সাথে ২৪ ঘণ্টা Bholar Sangbad, সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।