শিরোনাম:
ভোলা, রবিবার, ১৬ মে ২০২১, ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮

ভোলার সংবাদ
রবিবার ● ১৭ জুলাই ২০১৬
প্রথম পাতা » প্রবাস » মালালা ইউসুফজাই লিডারশিপ পেলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত লুনা
প্রথম পাতা » প্রবাস » মালালা ইউসুফজাই লিডারশিপ পেলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত লুনা
৪১১ বার পঠিত
রবিবার ● ১৭ জুলাই ২০১৬
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

মালালা ইউসুফজাই লিডারশিপ পেলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত লুনা

 

---

ডেস্ক : প্রথমবারের মতো ‘মালালা ইউসুফ জাই এওয়ার্ডের স্বীকৃতি পেলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত এক তরুণী। ‘কমিশন অন জেন্ডার ইকুয়িটি ও এনওয়াইসি ফার্স্ট লেডি কারলিন ম্যাকরে’র যৌথ উদ্যোগে সেরা তিনজনের মধ্যে অনত্যম ছিলেন বাংলাদেশি লুনা রহমান। সাউথ এশিয়ার একাধিক মানবাধিকার সংগঠনের হয়ে কাজের স্বীকৃতি পাওয়ায় উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন তিনি। বলেন, পুরস্কারটি আমাকে নিয়ে যাবে বহুদূর। যুক্তরাষ্ট্রে সংখ্যালঘুদের স্বার্থ রক্ষা, মুসলিম ও অভিবাসী নারীদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় তার লড়াই-সংগ্রাম চালিয়ে যাওয়ার অঙ্গিকারও করেন লুনা রহমান।

প্রথমবারের মতো ‘মালালা ইউসুফ জাই এওয়ার্ডের স্বীকৃতি পেলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত এক তরুণী। ‘কমিশন অন জেন্ডার ইকুয়িটি ও এনওয়াইসি ফার্স্ট লেডি কারলিন ম্যাকরে’র যৌথ উদ্যোগে সেরা তিনজনের মধ্যে অনত্যম ছিলেন বাংলাদেশি লুনা রহমান। সাউথ এশিয়ার একাধিক মানবাধিকার সংগঠনের হয়ে কাজের স্বীকৃতি পাওয়ায় উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন তিনি। বলেন, পুরস্কারটি আমাকে নিয়ে যাবে বহুদূর। যুক্তরাষ্ট্রে সংখ্যালঘুদের স্বার্থ রক্ষা, মুসলিম ও অভিবাসী নারীদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় তার লড়াই-সংগ্রাম চালিয়ে যাওয়ার অঙ্গিকারও করেন লুনা রহমান।

১২ জুলাই সারা বিশ্বে বেশ ঘটা করেই পালিত হয় পাকিস্তানের নোবেল জয়ী তরুণী মালালা ইউসুফজাইয়ের জন্মদিন। এবার সে জন্মদিন একটু অন্যভাবে পালন করল বিশ্বের সবচেয়ে বড় জাতি বৈচিত্র্যের শহর নিউইয়র্ক। নিউইয়র্কের মেয়র বিল ডি ব্লাজিওর স্ত্রী কারলিন ম্যাকরে একজন মানবাধিকার কর্মী হিসেবে পরিচিত। তারই উদ্যোগে এবার যে প্রথমবারের মতো একটি এওয়ার্ড প্রদান করা হচ্ছে। সেই এওয়ার্ড আর কারো নামে নয়, পৃথিবীর  ক্ষুদে নোবেল বিজয়ী মালালা ইউসুফজাইয়ের নামে। মঙ্গলবার নিউইয়র্ক শহরের সিটি হলে অনুষ্ঠিত মালালা ‘ইউসুফ জাই এওয়ার্ড গিভিং সিরিমনি’ ছিল অত্যন্ত জাঁকজমকপূর্ণ। অভিবাসী বান্ধব নিউইয়র্ক সিটিতে নারীর ক্ষমতায়নের পাশাপাশি সুবিধাবঞ্চিত নারী অধিকার প্রতিষ্ঠার সাথে সম্পৃক্ত সংগঠক ও সংগঠনের কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ প্রথমবারের মতো এ পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের যৌথ আয়োজক ছিল ‘কমিশন অন জেন্ডার ইকুয়িটি ও এনওয়াইসি ফার্স্ট লেডি কারলিন ম্যাকরে’।

পাকিস্তানের সোয়াত প্রদেশে ১০ বছর বয়সে মালালা তালেবানদের স্কুল ধ্বংস আর নারীর পড়াশোনা বিরোধী কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে স্থানীয়ভাবে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। উর্দু ভাষায় বিভিন্ন ব্লগ লিখতেন। তার সে সাহসিকতা পরাভুত হয়নি তালেবানদের আক্রমণে। মৃত্যুমুখ থেকে ফিরে আসেন মালালা। এরপর তার সে কাহিনী বিশ্বজুড়ে প্রচারিত হলে পিছিয়ে পড়া নারীদের মনোবল বৃদ্ধির প্রতীক হয়ে উঠেন মালালা। তিনি কনিষ্ঠ ব্যক্তি হিসেবে ২০১৪ সালে শান্তিতে নোবেল জয় করেন।

কুইন্সের রিচমন্ড হিলের বাসিন্দা লুনা রহমান মাত্র হাইস্কুল গ্রাজুয়েট সম্পন করেছেন। এরই মধ্যে নারী অধিকার আন্দোলন কর্মী হিসেবে তার সফলতার পুরস্কার গ্রহণ নতুন স্বপ্ন জাগিয়ে তুলেছে।  সাউথ এশিয়ান ইয়্যুথ অ্যাকশন-সায়া, ডেসিস রাইজিং আপ এন্ড মুভিং, টার্নি পয়েন্ট ফর ওমেন ও এশিয়ান ওমেনস সেন্টারের হয়ে কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ এই কৃতিত্ব অর্জন করেন বাংলাদেশি লুনা রহমান।  প্রায় তিন শতাধিক আমন্ত্রিত অতিথির উপস্থিত ছিলেন অনুষ্ঠানে।

প,ড/জেট,আর





আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)